বিএনপি নির্বাচনে জিতলে সরকার প্রধান কে হবে, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একটি দল নির্বাচনে অংশ নিতে আর মানুষের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করতে হলে দেখাতে হবে যে সেই দল নির্বাচনে জয়ী হলে কে হবে তাদের সরকার প্রধান। বিএনপি যে অংশ নেবে আগামী নির্বাচনে তারা কাকে দেখাবে?

বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘দলটির নেতৃত্ব কার হাতে এবং কে নেতা? ওরা ইলেকশন করবে কী নিয়ে, পূঁজি কী? বিএনপির কি একটাও যোগ্য নেতা নেই যাকে তারা চেয়ারম্যান করতে পারে?’

‘ওদের জন্য কান্নাকাটি করে লাভ নেই। ওরা ইলেকশন করবে কাকে নিয়ে, আমাকে বলতে পারবেন?’

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছিল। তবে এতে চলমান বন্যা পরিস্থিতি এবং আগামী নির্বাচন নিয়েও কথা বলেন তিনি।

অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে খালেদা জিয়া ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দিকে ইঙ্গিত করে শেখ হাসিনা বলেন, একজন দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি যাকে তিনি নির্বাহী আদেশে বয়স বিবেচনায় বাসায় থাকার সুযোগ দিয়েছেন, অন্যজন দশ ট্রাক অস্ত্র মামলা ও একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় সাজাপ্রাপ্ত।

আগের দুটি নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হয়নি— এমন অভিযোগও প্রত্যাখ্যান করেন তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি নিজেই নির্বাচন থেকে সরে গিয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন ‘তারা যে ইলেকশন করবে কাকে দেখাবে (নেতা হিসেবে)? সাজাপ্রাপ্ত পলাতককে? সে তো এ দেশের নাগরিকত্ব বাতিল করে ব্রিটিশ নাগরিক হয়ে বসে আছে। সাজাপ্রাপ্ত হয়ে ব্রিটিশ নাগরিক কীভাবে হলো? এ নিয়ে তারা কীভাবে ইলেকশন করবে? সেটিই বড় কথা। এখানে গণতন্ত্রের দোষ কোথায়।’

বিএনপি ও জাতীয় পার্টিকে সামরিক একনায়কদের হাতে একই কায়দায় প্রতিষ্ঠিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, এর বাইরে বাম দলগুলো ক্ষুদ্র হতে হতে বর্তমান অবস্থায় এসে দাঁড়িয়েছে।

‘তাহলে আর আছে কে? ভালো শক্তিশালী দল দেন। মাঠেই দেখা হবে-জনগণ যাকে চায়। আমি তো সুযোগ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী তো হতে চাইনি কখনো। জনগণের ভোট কেড়ে নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চাই না, সেটা থাকবো না।’

সম্প্রতি বিরোধীদের পক্ষ থেকে সেতু নিয়ে বেশি অর্থ ব্যয় করা ও দুর্নীতির যেসব অভিযোগ তোলা হয়েছে সেদিকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, সেতুর গুনগত মানে কোন আপোষ করা হয়নি এবং সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও উপকরণে এটি নির্মিত হয়েছে।

সেতু নির্মাণে সমর্থনের জন্য দেশের মানুষের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর কাজের মান নিয়ে কেউ কোন প্রশ্ন তুলতে পারবে না। যারা সমালোচনা করেছে তাদের আত্মবিশ্বাসের অভাব আছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।