আমির হোসেন ও হুমায়ূন কবিরের যৌথ সম্পাদনায় অমর একুশে বইমেলায় ‘তিতাস বন্দনা’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

অমর একুশে বইমেলায় ‘তিতাস বন্দনা’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মোড়ক উন্মোচন আনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কথাসাহিত্যিক মনীশ রায় এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন কবি ও কথাসাহিত্যিক আমির হোসেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন কবি ও গীতিকার গাজী তানভীর আহমদ, কবি ও সংগঠক মনিরুল ইসলাম শ্রাবন, ফাহিম মুনতাসির এবং সানিউর রহমানসহ আরো অনেকে।

কথাসাহিত্যিক মনীশ রায় বলেন, ‘তিতাস নদী অদ্বৈত মল্লবর্মণ এবং আল মাহমুদের মতো শক্তিশালী লেখক-কবিদের জন্মদানে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। এই তিতাসের সংস্পর্শে এসে, তিতাসের ভালোবাসার সাথে মিশে অসংখ্য লেখক ও কবি সৃষ্টি হয়েছেন। এখানে কবি আমির হোসেন এবং হুমায়ুন কবিরের যৌথ সম্পাদনায় শুধু তিতাস নদীকে নিয়ে যে কাব্যগ্রন্থের প্রকাশনা উৎসব হচ্ছে তাদের এই কাজকে আমি সাধুবাদ জানাই। বাংলা সাহিত্যে এই কাব্যগ্ৰন্থটি একটি অনন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।’

‘তিতাস বন্দনা’র সম্পাদক কবি ও কথাসাহিত্যিক আমির হোসেন বলেন, ‘তিতাস নদীকে নিয়ে আমাদের এই ভালবাসার প্রকাশনা আশা করছি পাঠকমহলে নন্দিত হবে। এখানে শুধু তিতাসকে নিয়ে দুই বাংলার লেখকদের নির্বাচিত কবিতায় গ্রন্থটি সাজানো হয়েছে।’

মোড়ক উন্মোচন শেষে আদিত্য শাহীনের উপস্থাপনায় চ্যানেল আইয়ের এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে ‘তিতাস বন্দনা’ কাব্যগ্রন্থের অপর সম্পাদক হুমায়ূন কবির বলেন, ‘দুই বাংলার নবীন-প্রবীণ লেখকদের নির্বাচিত কবিতা নিয়ে আমাদের এই ব্যতিক্রমী আয়োজনটি এই প্রথম। আশা করছি নদীপ্রেমিক পাঠকমাত্রই, বিশেষ করে যারা নদীকে ভালবাসেন তারা এই কাব্যগ্রন্থের প্রতিটি কবিতা পাঠে আনন্দ পাবেন, নিজেকে তিতাসের সাথে খুজে নিতে পারবেন।’ অপর এক প্রশ্নের জবাবে আদিল প্রকাশের স্বত্বাধিকারী গাজী তানভীর আহমদ বলেন, ‘ব্রাহ্মণবাড়িয়া হচ্ছে শিল্প-সাহিত্যের পীঠস্থান। এককথায় রাজধানী। এই জেলার পরতে পরতে শিল্পমনা কবি-লেখক-সাহিত্যিক ছড়িয়ে আছেন। তাদেরকে উঠিয়ে আনা এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করার একটি প্রয়াস হচ্ছে এই ‘তিতাস বন্দনা’। শুধু নদীকে নিয়ে কাব্যগ্রন্থের এমন আয়োজন সম্ভবত বাংলাদেশের সাহিত্যে এটাই প্রথম।’

মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের উপস্থাপক জানান, অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২২ এর একুশে ফেব্রুয়ারির আজকের এই দিনে প্রথম মোড়ক উন্মোচন হিসেবে স্মরণীয় হয়ে থাকবে ‘তিতাস বন্দনা’।

বাংলা একাডেমির সূত্রে জানা যায়, একুশে ফেব্রুয়ারি তারিখে মেলার সপ্তম দিনে মোট বই এসেছে ২২৪ টি। বইটি মেলায় এনেছে সৃজনশীল প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান আদিল প্রকাশ। বইটি ছায়াবীথির ৫৬১- ৫৬৪ নং স্টলে পাওয়া যাবে। এছাড়া অনলাইনেও বইটি পাওয়া যাবে।