ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সাংবাদিকদের অনলাইন কর্মশালা অনুষ্ঠিত।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি:  বাংলাদেশ মানবাধিকার সংবাদিক ফোরামের (বিএমএসএফ) আয়োজনে “বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে গণমাধ্যমের ভূমিকা” শীর্ষক ভার্চুয়াল (জুম অন-লাইন) কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) সকাল ১০ টায় এ কর্মশালায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ও উপজেলার ২০ জন সাংবাদিক অংশ নেন।

কর্মশালায় জেলার অংশগ্রহণকারী সাংবাদিকরা নিজ নিজ এলাকা থেকে অনলাইনে যুক্ত হন। জনস হপকিন্স-সেন্টার ফর কমিউনিকেশন প্রোগ্রাম ও ইউএসএইড উজ্জীবন প্রকল্পের সহযোগিতায় এবং বাংলাদেশ মানবাধিকার সংবাদিক ফোরামের (বিএমএসএফ) আয়োজনে এ কর্মশালা য় জেলার সাংবাদিকরা  অংশ নেন।

কর্মশালায় বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে গণমাধ্যমের করণীয় নিয়ে আলোচনা করেন বাংলাদেশ মানবাধিকার সাংবাদিক ফোরামের মহাসচিব বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ ও বাসসের সিনিয়র সাংবাদিক খায়রুজ্জামান কামাল, ইউএসএইড ও উজ্জীবন প্রকল্পের কনসালটেন্ট সোনিয়া রহমান, জাতীয় প্রেসক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য শাহনাহাজ বেগম পলি,  সিনিয়র সাংবাদিক আনহার আহমদ সমসাদ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া কর্মশালার সমন্বয়ক পথিকটিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক লিটন হোসাইন জিহাদ।

কর্মশালায় মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন- পথিকটিভির চেয়ারম্যান রাবেয়া জাহান তিন্নি, দৈনিক ফ্রন্টিয়ার এর সম্পাদক আব্দুল মালেক,বিজয় টিভির প্রতিনিধি মুহাম্মদ মাসুদ,দৈনিক সময়ের আলোর প্রতিনিধি শাহগির মৃধা, আজকের বিজনেজ বাংলাদেশ এর জেলা প্রতিনিধি হালিমা খানম, দৈনিক পথিকনিউজ এর প্রতিনিধি এইচ এম জাহিদ, পথিকটিভির চীফ ভিডিও এডিটর শাখাওয়াত হোসেন শাহিন, দৈনিক যায়যায় কালের নাসিনগর প্রতিনিধি,শেখ আবুল খায়ের আনছারী, এএমটিভির প্রোগ্রাম প্রডিউসার আশরাফুল ইসলাম ইয়াসিন, মানবকন্ঠের প্রতিনিধি ইয়াসিন, পথিকটিভির প্রতিনিধি মো:মনির হোসেন, তাজুল ইসলাম আপন প্রমুখ।

আলোচকরা প্রত্যন্ত এলাকায় বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সর্ব প্রথম অভিভাবকদের সচেতনতা সৃষ্টি, শিক্ষায় নারীদের আরও বেশি অংশগ্রহন, নারী ও শিশু সুরক্ষায় জরুরী জাতীয় টেলি নম্বরের ব্যাপক প্রচার, আইনের কঠোর প্রয়োগে ইউনিয়ন পরিষদসহ শিক্ষক ও কাজী সাহেব, ধর্মীয় নেতাদের মাঝে সচেতনতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়।

কর্মশালায় বাল্যবিবাহের কারণ, কুফল, প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করা হয়। করোনাকালীন  মহামারী সময়ে দেশের বাল্যবিবাহ বেড়ে যাওয়ার তথ্য প্রকাশ করেন। আগামীতে এ অবস্থা কমিয়ে আনতে জনমত সৃষ্টিতে সাংবাদিকরাই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারেন বলে উল্লেখ করেন আলোচকরা।