কুমিল্লা দক্ষিনাঞ্চলে ৩ শতাধিক করাতকলের রাজস্ব ফাঁকি

Spread the love

মশিউর রহমান সেলিমঃ  কুমিল্লার দক্ষিনাঞ্চলের লাকসাম, বরুড়া, লালমাই, নাঙ্গলকোট ও মনোহরগঞ্জ উপজেলা জুড়ে আয়কর বিভাগ লাকসাম সার্কেলের অধীনে প্রায় ৩ শতাধিক করাতকলের অবৈধ বানিজ্যে সরকারী রাজস্ব ফাঁকির মহোৎসব চলছে। উপজেলাগুলোর বিভিন্নস্থানে যত্রতত্র ভাবে সরকারী নিবন্ধনবিহীন ওইসব করাতকলগুলোর দৌরাত্ব যেন থামছে না।
স্থানীয় একাধিকসূত্র জানায়, ওইসব এলাকাগুলোতে সরকারী বিধিমালা কিংবা নিয়মকানুনকে উপেক্ষা করে স্থাণীয় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নাকের ডগায় ব্যাঙের ছাতার মতো অবৈধ ভাবে গড়ে উঠেছে করাতকলগুলো। অথচ সরকারী নিয়ম মতে পৌর/ইউপি ট্রেড লাইসেন্স, অনাপত্তি ছাড়পত্র, পরিবেশ সনদ, বন বিভাগের প্রত্যয়নপত্র ও শিল্প-বানিজ্য দপ্তরের ছাড়পত্রসহ ডিসি সনদ বাধ্যতামূলক থাকার কথা থাকলেও ওইসবের ধারে কাছেও যাচ্ছে না করাতকল মালিকরা। ওইসব তদারকি স্থানীয় বন বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর দায়িত্ব অতি মূখ্য হলেও রহস্যজনক কারনে তা অনেকটাই পর্দার অন্তরালে। এদিকে লাকসাম-শ্রীয়াং সড়কের দুপাশের শত শত নানা ধরনের গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে এলাকার মানুষ। এতে স্থানীয় গাছ দস্যুদের তৎপরতা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলেছে। স্থানীয় প্রশাসন কিংবা সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর কর্মকর্তারা যেন নিরব দর্শক।
সূত্রগুলো আরো জানায়, ওইসব করাতকলগুলো উপজেলা সদর, হাটবাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও হাসপাতাল-ক্লিনিকের পাশে অবস্থিত। এতে ধুলা-বালু, তুষ, ছাঁই উড়ে এলাকার পরিবেশ দূষনে স্বাস্থ্যহানীর ঝুঁকি বাড়ছে। স্থাণীয় বন বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর কর্মকর্তাদের পকেট বানিজ্যের কারনে এসব নিরসনে যেন নীরব দর্শক। অথচ প্রতিবছর সরকারী রাজস্ব আয়ে মোটা অংকের অর্থ আদায়ে যেন ভানুমতির খেল। করাতকল মালিকরা স্থাণীয় প্রশাসনের দায়িত্বহীনতা ও পেশী শক্তির ক্ষমতার দাপটে তাদের অবৈধ বানিজ্যে তারা দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে। পাশাপাশি এ অঞ্চলে অসংখ্য ফার্নিচার দোকানও ওদের সাথে তাল মিলিয়ে সরকারী রাজস্ব ফাঁকির মহোৎসবে যোগ দিয়েছে। ওইসব করাতকল ও ফার্নিচার দোকানে রাতের অন্ধকারে বিভিন্ন সড়কের চোরাইগাছ এবং চোরাই পথে আসা বিদেশী গাছের ব্যবসা জমে উঠেছে। স্থাণীয় বন বিভাগের করাতকল-ফার্ণিচার দোকানের তালিকার সাথে বাস্তবে কোন মিল নেই।
জেলা দক্ষিণাঞ্চলের ৫টি উপজেলার একাধিক স্থানীয় পরিবেশবিদ সূত্র জানায়, উপজেলা ও পৌরশহরে ওইসব প্রতিষ্ঠানের চেয়ে গ্রামাঞ্চলের চিত্র ৮/১০ গুন বেশি। করাতকল ও ফার্নিচার দোকানের সরকারী আয়করসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর অনুমতি সনদ নিতে প্রচুর অর্থ লাগে এবং নানাহ হয়রানি তো আছেই ফলে তারা ওইসবের দিকে না গিয়ে অবৈধ বানিজ্যে আগ্রহ বেশি। এছাড়া ভ্রাম্যমান আদালত কিংবা আয়কর-পরিবেশ দপ্তর আন্তরিক হলেই এ অঞ্চলের ৩ শতাধিক করাতকল ও ফার্ণিচার দোকান সরকারী নিয়মে আনা সম্ভব। এ বিষয়ে ৫টি উপজেলার একাধিক করাতকল ও ফার্ণিচার দোকান মালিক কথা বলতে নারাজ। তবে কেউ কেউ বলছেন ভিন্ন কথা। দীর্ঘদিন আমরা এ পেশা চালিয়ে আসছি। কোন দিন কোন সমস্যা হয়নি। তবে বিশেষ বিশেষ দপ্তরগুলোর লোকজন আসলে তাৎক্ষনিক আমাদের সমিতির নেতারা ম্যানেজ করে ফেলেন। এখানে স্থাণীয় প্রশাসন কিংবা মিডিয়াকর্মীদের কোন ব্যাপার নেই। এ অঞ্চলে প্রায় ৩ শতাধিক করাতকল ও সহস্রাধিক ফার্নিচার দোকান রয়েছে।

এ ব্যাপারে জেলা-উপজেলা বনবিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট একাধিক দপ্তরের কর্মকর্তাদের মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।