ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মসজিদে ঢুকে যুবককে কুপিয়ে জখম

Spread the love

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় শরিফুল্লাহ খান ইমন(২২) নামের এক যুবককে মসজিদে ঢুকে কুঁপিয়ে জখম করছেন প্রতিবেশী। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারী) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের ভাদেশ্বরা গ্রামের ভূইয়া বাড়ি জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। আহত ইমনকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সে ভাদেশ্বরা গ্রামের আলী আকবর খানের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আহত ইমন আসরের নামায পড়তে ভূইয়া বাড়ি জামে মসজিদ যায়। মসজিদের ভেতরে ঢুকে প্রতিবেশি একই গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে মুস্তাকিম মিয়া, তার ৩ সহোদর মিন্টু, হাসান ও আলামীনসহ ১০/১৫ জন দুর্বৃত্ত ইমনের ওপর হামলা চালায়। রামদা দিয়ে তার মাথায় ও শরীরে কোপাতে থাকে। তার চিৎকারে মসজিদের মুসুল্লিরা ভয়ে পালিয়ে যায়। দুর্বৃত্তরা তাকে ইচ্ছেমত কোপানোর পরে চলে যায়। আহত ইমনের চাচা ইসমাইল খান জানান, গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার বিদ্যুৎতিক মিটারে আগুন লাগিয়ে দেন প্রতিবেশী আব্দুর রহমানের ছেলে আবু বক্কর। শুক্রবার বিকেলে সদর মডেল থানায় অভিযোগ দাখিল করার পর আজকে এসআই নুরুল আমিন তদন্ত করতে আসে। তদন্ত করে যাওয়ার পর ওই তুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র করে ভূইয়া বাড়ি জামে মসজিদ আসর নামাযের সময় মুস্তাকিমসহ ১০-১৫ জন দুর্বৃত্ত ইমনকে কুফিয়ে জখম করেন। এ ধরনের হামলা হওয়া পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় থাকতে হচ্ছে আমাদের। আমি এর সঠিক বিচার চাই। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, ইমনে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসলে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। শরীরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ যায়গায় জখম হওয়ায় ও প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাকে ঢাকা পাঠানো হয়েছে। সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) আব্দুর রহিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ইমনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও জানান, আমি হাসপাতালে গিয়ে রোগীকে দেখে আসছি। এ ব্যাপারে মামলা হবে। দ্রুত সময়ে আসামিদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হবে।