লাকসামে ওয়াজ মাহফিল ঘিরে অপ্রচারের প্রতিবাদে ইউপি চেয়ারম্যানের সাংবাদিক সম্মেলন

Spread the love

মশিউর রহমান সেলিম, লাকসামঃ

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার গোবিন্দপুর ইউপি’র এক ওয়াজ মাহফিল ঘিরে
অপ্রচারের প্রতিবাদে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় মাঠে এক
সাংবাদিক সম্মেলন করেছে ওই ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন শামীম। গত রবিবার রাতে
ইউপির নারায়নপুর গ্রামে ওই ওয়াজ মাহফিলটি অনুষ্ঠিত হয়েছিলো।
উক্ত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ওই ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন শামীম
বলেন, স্থানীয় প্রশাসনের অনুমতি কিংবা আমার কোন সম্মতি না নিয়ে এলাকার কতিপয়
যুবক ওই গ্রামে মাদ্রাসা মাঠে ওয়াজ মাহফিলটি চালিয়ে যাচ্ছিলো। রাত প্রায় ১টার
দিকে ওই এলাকার লোকজন আমার মুঠো ফোনে বার বার জানায় ওয়াজ মাহফিল ঘিরে স্থানীয়
দু’টি পক্ষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া এবং যে কোন মূহূর্তে গন্ডগোল লেগে যেতে পারে।
আমি তাৎক্ষনিক এলাকার দু’জন চৌকিদার ও আমার গাড়ির ড্রাইভার নিয়ে ওই এলাকায়
গিয়ে বিস্তারিত অবগত হয়ে মাহফিলের প্রধান ওয়ায়েজিন মাওলানা হাসিবুর রহমান
হুজুরকে বক্তব্য সংক্ষিপ্ত এবং জাতীয় কিংবা রাজনৈতিক কোন বক্তব্য না দেয়ার জন্য লোকজনের
মাধ্যমে খবর পাঠাই কিন্তু হুজুর বক্তব্য সংক্ষিপ্ত না করে আরো বেপরোয়া ভাবে সরকার ও ইসলাম
সুন্নাহ বিরোধী ওয়াজ করতে থাকে।
তিনি আরও বলেন, এসময় প্যান্ডেলে উত্তেজনা দেখা দিলে আমি মনোবল না হারিয়ে
মঞ্চের দিকে এগিয়ে যাইতে চাইলে পরপর দু’বার বহিরাগত জামায়াত-শিবিরের অচেনা বেশ
কিছু যুবক আমার হামলা চালাতে এগিয়ে আসলে প্যান্ডেলে থাকা কিছু মুসল্লী ওদের
প্রতিহত করে। আমি সাথে সাথে মঞ্চে উঠে হুজুরের সামনে গিয়ে ওয়াজ বন্ধ করতে বলি।
হুজুর আমার কথা না রাখায় আমি নিজেই মায়ের আমার হাতে নিয়ে ওই ওয়াজের
আয়োজনকারী ও বহিরাগত লোকদের উদ্দেশ্যে কিছু কথা বলি এবং প্যান্ডেলে উত্তেজিত
লোকজনকে শান্ত রাখার চেষ্টা করি। তখনই ওয়াজ বন্ধ হয়ে গেলে যে যার মতো করে বাড়ি চলে
যায়। আমিও সেখান থেকে বাড়ি চলে আসি। পরদিন সোমবার সকালে বিভিন্ন সামাজিক
যোগাযোগ মাধ্যমে ওই ওয়াজ মাহফিল ঘিরে আমার বক্তব্যকে সুপার এডিটিং করে
বিকৃতি ভাবে প্রচার করে দেখতে পেয়ে এতে আমি হতবাক হয়ে পড়ি।
তিনি সাংবদিক সম্মেলনে উপস্থিত এলাকার ওলামায়েকেরামদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমাদের
এলাকায় ৯৫ ভাগ মানুষ মুসলমান। শতাদ্বিকাল থেকে দলমত নির্বিশেষে সবাই মিলে মিশে
বসবাস করছি। ওয়াজ মাহফিলে যদি বলা হয় কোন নেতার পিছনে গেলে আপনাকে দুজোগে
যেতে হবে। আপনারা ব্রাক্ষনের বংশধর, এছাড়া সরকার বিরোধী বক্তব্যতো আছেই। তাহলে ওই
এলাকায় কিছু মুসল্লীদের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া হবে না? আপনারা আমার পুরা বক্তব্য ও
হুজুরের ওয়াজটি শুনলে বুঝতে পারবেন এটা পূর্ব পরিকল্পিত এবং প্রশাসনের অনুমোতি
ছাড়া হঠাৎ করে ওই এলাকায় এ ওয়াজ মাহফিল ঘিরে জামায়াত-শিবির চক্র ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য
একটা পথ বেঁছে নিয়েছে। তারপরও ওই এলাকার শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে ওই মাহফিল বন্ধ করে
দেয়ায় যদি কেউ কোন প্রকার মনেকষ্ট পেয়ে থাকেন আমি তার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি।
এ সময় উক্ত সাংবাদিক সম্মেলনে ওই ইউপির উত্তর শাখার সভাপতি মোঃ বেলায়েত
হোসেন, দক্ষিনের সভাপতি হাজী নাজমুল হক, সাধারণ সম্পাদক ঠিকাদার জসিম উদ্দিন,
যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাজাহান সাজু, দিদারুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদ
উল্লাহ মেম্বার, আওয়ামীলীগ নেতা সামছুল আলম, ওই মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি
মোঃ জাকির হোসেন লাতু, শিক্ষক আবুল ফয়েজ, মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, মাদ্রাসা সুপার

আবুল হাসিব, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সহ-সভাপতি শম্ভু সাহা, সাধারণ সম্পাদক
অধ্যাপক জাজাঙ্গীর আলমসহ এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, ওলামায়েকেরাম,
মসজিদের খতিব-ইমাম, রাজনৈতিক ও বেসরকারি সংস্থার নেতৃবৃন্দসহ সার্বজনিন
লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

পথিকটিভি/ এ আর