সুচির পর এখন সেনাদের আওতায় কেমন আছে মিয়ানমার

Spread the love

ভোরের আলো ফোটার আগেই গতকাল সু চি ও মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টকে নেপিডো থেকে আটক করে সেনাবাহিনী। যোগাযোগবিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে সু চির দল এনএলডির মুখপাত্র মিয়ো নিয়ুন্ত এএফপিকে এ কথা জানান। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নেপিডোর সব রাস্তা বন্ধ করে দেয়। নেপিডোয় সশস্ত্র সেনাবাহিনীর টহল চলতে থাকে। সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার শহরজুড়ে নজরদারি করতে থাকে।

মিয়ানমারে গতকাল প্রায় সারা দিন ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন ছিল। ব্যাংকগুলোও বন্ধ ছিল। মিয়ানমার ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশন বলেছে, আজ ব্যাংক খুলে দেওয়া হয়েছে। তবে এখনো বন্ধ রয়েছে শেয়ারবাজারের কার্যক্রম।

গতকাল মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) দলের নেত্রী অং সান সু চি, মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট ও বেশ কয়েকজন শীর্ষ রাজনৈতিক নেতাকে আটক করে। পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল গতকাল। সেদিনই এ ঘটনা ঘটে।

সাবেক জেনারেল মিন্ট সোয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হলেও মিয়ানমারের সেনাপ্রধান ও অভ্যুত্থানের নেতা জেনারেল মিন অং হ্লাইংয়ের হাতেই এখন দেশের ক্ষমতা। সেনাবাহিনী গতকাল মিয়ানমারে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সেনাবাহিনী বলেছে, এরপর তারা নির্বাচন দেবে।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মিয়ানমারে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আহ্বান জানিয়েছেন। মিয়ানমারে যুক্তরাষ্ট্র আবার নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারে বলে হুমকিও দিয়েছেন।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও অস্ট্রেলিয়া সেনা অভ্যুত্থানের ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে। যুক্তরাজ্য মিয়ানমারের দূতকে তলব করেছে। তবে চীন কোনো পক্ষের সমালোচনা না করে বিভেদ মেটানোর জন্য আহ্বান জানিয়েছে।

মিয়ানমার পরিস্থিতি নিয়ে আজ জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ জরুরি বৈঠক ডেকেছে।
সামরিক শাসনের পর মিয়ানমারে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম রাষ্ট্রদূত ডেরেক মিচেল বলেন, নভেম্বরের নির্বাচনে বিজয়ের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সু চিকে শ্রদ্ধা করা উচিত। গণতন্ত্রের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হলে সু চিকে গণতন্ত্রের প্রতীক হিসেবে মেনে শ্রদ্ধা করতে হবে। তিনি বলেন, এটা ব্যক্তির বিষয় নয়; প্রক্রিয়ার বিষয়।

সূত্রঃ প্রথম আলো

পথিকটিভি/ এ আর