মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর হাতে আটক অং সাং সুচি; ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট নিয়োগ।

Spread the love

অনলাইন ডেস্কঃ মিয়ানমারের ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) দলের নেত্রী অং সান সু চি আটক হয়েছেন। দেশটির সামরিক বাহিনী আজ সোমবার ভোরে বাসায় রেইড দিয়ে তাকে আটক করে নিয়ে যায়। শুধু সু চিই নন, আটক করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টকেও। এ ছাড়া দেশটির গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন নেতাকেও আটক করেছে সেনাবাহিনী। ব্রিটিশ সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এনএলডির মুখপাত্র মিয়ো নিউন্ট।
মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফকে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি, দেশটির প্রেসিডেন্ট ও দলটির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ নেতাদের আটকের পর এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।
সোমবার মিয়ানমারের সেনাবাহিনী পরিচালিত মায়াওয়াদ্দি টিভিতে জরুরি অবস্থার ঘোষণা দেওয়া হয়। খবর আল জাজিরার ঘোষণায় বলা হয়েছে, মিয়ানমারের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এমন পদক্ষেপ প্রয়োজনীয় ছিল। সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফ সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইয়াং-এর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হবে এবং এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করা হবে।
ভোরে সু চিসহ এনএলডির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ নেতাদের আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন দলটির মুখপাত্র মিও নয়েন্ট। তিনি বলেছেন, ‘আমি আমাদের জনগণকে দ্রুত কোনো কিছু না করার জন্য অনুরোধ করছি। আমি তাদের আইন মেনে চলতে বলছি।’
মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি, দেশটির প্রেসিডেন্ট ও দলটির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ নেতাদের আটকের পর দেশটির ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
স্থানীয় সময় সোমবার ভোর থেকে টেলিযোগাযোগ ও মোবাইল পরিষেবাও ব্যাহত হচ্ছে। খবর রয়টার্সের
নেটব্লকস নামের এক মনিটরিং সার্ভিস জানিয়েছে, স্থানীয় সময় ভোর থেকে টেলিযোগাযোগ ব্যাহত হয়। মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে ইন্টারনেট যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।
ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি, দেশটির প্রেসিডেন্ট ও দলটির অন্যান্য জ্যেষ্ঠ নেতাদের ভোরে আটক করা হয়েছে। এরপর সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফকে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। সেইসঙ্গে দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়েছে।
মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদো ও প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনের সিটি হলের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সেনাবাহিনী।

পথিকটিভি/ এ আর