মিয়ানমারের প্রতি কঠোর বার্তা মার্কিন প্রেসিডেন্টের; আসল দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুশিয়ারি।

Spread the love

অনলাইন ডেস্কঃ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) দেশটির ক্ষমতা দখল করে নেয়ার পর কঠোর প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এ ঘটনায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং তার প্রশাসনের দিক থেকে কঠোর বার্তা দেয়া হয়েছে। দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ারও হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিনকেন বলেছেন, ৮ নভেম্বরের গণতান্ত্রিক নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত সরকারি কর্মকর্তা এবং সুশীল সমাজের নেতাদের মুক্তি এবং বার্মার জনগণের ইচ্ছাকে সম্মান জানাতে বার্মিজ সামরিক নেতাদের প্রতি আহ্বান জানাই।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে মিয়ানমারের সবশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউজ।

হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জেন সাকি বলেন, সাম্প্রতিক নির্বাচনের ফলাফল পরিবর্তন করতে বা মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক উত্তরণে বাধা দেয়ার যেকোনো প্রয়াসের বিরোধিতা করে যুক্তরাষ্ট্র এবং এই পদক্ষেপগুলো পরিবর্তন না করলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) এক সামরিক অভ্যুত্থানে মিয়ানমারের দখল করে নেয় দেশটির সেনাবাহিনী। এসময় তারা দেশটির প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট এবং ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) পার্টির প্রধান অং সান সু চিসহ আরও শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তার করে সেনাবাহিনী।

গত প্রায় এক সপ্তাহ ধরে সেনাবাহিনী আবার ক্ষমতা দখল করবে এমন গুঞ্জন চলছিল। প্রায় পাঁচ দশক ধরে মিয়ানমারের ক্ষমতায় ছিল দেশটির শক্তিশালী সেনাবাহিনী। গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সু চির দল এনএলডি নিরঙ্কুশ জয় পায়। তবে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলেছে সেনাবাহিনী। ২০১১ সালে সরাসরি সেনা শাসনের অবসান ঘটিয়ে গণতন্ত্রের পথে ফেরা মিয়ানমারে এটি ছিল দ্বিতীয় জাতীয় নির্বাচন।

সূত্রঃ bdnews24

পথিকটিভি/ এ আর