নতুন সার্চ ট্রেইন্ড-“স্কুল কবে খুলবে ২০২১”। স্কুল আরো দেরীতে খুলার ইঙ্গিত প্রধানমন্ত্রীর।

Spread the love

গুগলে বাংলাদেশ থেকে গত এক সপ্তাহ ধরে অনেকেই এখন সার্চ করছেন এই শব্দবন্ধ দিয়ে।
এই সার্চ ট্রেন্ডই বলে দেয় বাংলাদেশে মানুষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া নিয়ে কতটা চিন্তিত। কারো চিন্তার বিষয়, খোলে না কেন? কারো চিন্তা, কেন খুলছে?
সকল স্কুল কলেজে পাঠিয়ে ৪ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়। যাতে যে কোনো মুহুর্তে খুলে দিতে পারে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
শিক্ষা মন্ত্রী দিপু মনি বলেন, তারা ফেব্রুয়ারীর শেষ বা মার্চের শুরুতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে।
কিন্তু শনিবার উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা আশা করছি হয়তো আগামী মার্চ-এপ্রিল…..মার্চ মাসটা আমরা দেখবো, কারণ আমাদের দেশে মার্চ মাসেই ব্যাপকহারে করোনা ভাইরাস শুরু হয়েছিলো”।
তিনি বলেন, ফেব্রুয়ারীতে তারা দেখবেন । যদি ভালো তাকে তাহলে পরবর্তীতে সীমিত আকারে স্কুল কলেজ খুলে দিবে বলে চিন্তা করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলছিলেন, “এজন্য দরকার সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলা ও করোনাভাইরাস মোকাবেলায় যা যা ব্যবস্থা আছে তা গ্রহণ করা। আর ভ্যাকসিন তো সবাই পেয়ে যাবেন”
এর আগে শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে স্কুল খোলা বিষয়ক যে গাইডলাইন দেয়া হয়েছিল, সে অনুযায়ী সরকারের অনুমোদন পেলে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরিয়ে নেয়ার পাশাপাশি অন্য শ্রেণীগুলোর জন্য সপ্তাহে এক বা দুদিন ক্লাস শুরু হওয়ার কথা।
এরই মধ্যে শিক্ষামন্ত্রী নোটিশ দিয়ে বলে দিয়েছে, ফেব্রুয়ারির ১৪ তারিখ পর্যন্ত শিক্ষা ছুটি বাড়ানো হয়েছে।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর ইঙ্গিত অনুযায়ী মার্চ মাসেও যদিও স্কুল না খোলে, তাহলে সেটা যে আরো সেটা পিছিয়ে বছরের মধ্যভাগ পর্যন্ত চলে যাবে সেটা মোটামুটি বলা যায়।
কারণ এপ্রিল মাস থেকে শুরু হচ্ছে রমজান মাস। সাধারণ সময়ে এমনিতেই রমজান মাসে স্কুল কলেজ দীর্ঘ সময়ের জন্য বন্ধ থাকে।
যেসব স্কুল চলে, সেগুলোও সীমিত আকারে।
ফলে মহামারির মধ্যে এমনিতেই যেখানে স্কুল খোলা রাখা যাচ্ছে না, সেখানে রমজান মাসে যে স্কুল খোলা হবে না, সেটা ধরেই নেয়া যায়। আর রমজান শেষে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মী উৎসব ঈদ-উল-ফিতরের ছুটি শেষ হতে হতে পার হয়ে যাবে মে মাসের মধ্যভাগ।
অবশ্য কর্মকর্তারা আগেই জানিয়েছিলেন যে, পরিস্থিতি পুরো নিয়ন্ত্রণে এলে পুরোদমে শিক্ষা কার্যক্রম চলবে এবং তখন প্রয়োজন হলে নির্ধারিত ছুটিগুলো অনেক কমিয়ে দেয়া হবে।
বাংলাদেশে গত বছরের মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ আছে। পরে জুলাই থেকে অনলাইন, টেলিভিশন কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে বিকল্প শিক্ষাদানের উদ্যোগ নেয়া হলেও তা খুব একটা সাফল্য পায়নি।
এর মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার কমে আসা ও ভ্যাকসিন দেয়া শুরুর প্রেক্ষাপটে কর্তৃপক্ষ স্কুলগুলো খুলে দেয়ার বিষয়ে প্রাথমিক প্রস্তুতি নিতে শুরু করে।
পাশাপাশি চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য সিলেবাস সংক্ষিপ্তকরণেরও কাজ করছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড।

পথিকটিভি/ এ আর