করোনার আতঙ্ক ছড়াচ্ছে পৃথিবীতেঃ নতুন ধরন শনাক্ত।

Spread the love

মধ্য ইউরোপের দেশ স্লোভেনিয়াতে করোনার নতুন ধরন শনাক্ত হয়েছে। স্লোভেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী ইয়ানেজ ইনশা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দেশটিতে শনাক্ত হওয়া করোনা ভাইরাসের নতুন এ ধরন সম্পর্কে নিশ্চিত করেন। দেশটিতে বসবাস করা কসোভোর এক নাগরিকের শরীরে করোনা ভাইরাসের নতুন এ ধরন শনাক্ত করা হয়।
দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইয়ানেজ ইনশা বলেন, নতুন শনাক্ত হওয়া করোনার এ ধরনের সঙ্গে যুক্তরাজ্যে পাওয়া করোনার ধরনের মিল রয়েছে।
স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, আক্রান্ত ব্যক্তি ব্যবসায়িক কাজে বেলজিয়াম ভ্রমণ করেছিলেন। সেখান থেকে স্লোভেনিয়া ফেরার সময় তিনি দুইবার করোনার টেস্ট করার যেখানে একবার ফলাফল পজিটিভ ও অন্যবার নেগেটিভ আসে। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি নেগেটিভ করোনা সনদ নিয়ে বেলজিয়াম থেকে স্লোভেনিয়াতে ফেরত এসেছিলেন। পরবর্তীতে সংশ্লিষ্ট বেলজিয়ান কর্তৃপক্ষ তার শরীরে করোনার নতুন ধরনের উপস্থিতির বিষয়ে স্লোভেনিয়া সরকারকে জানায়। স্লোভেনিয়াতে আসার পর তিনি তৃতীয়বারের মতো তার শরীরে করোনার পরীক্ষা করান যেখানে আরও একবার তার শরীরে করোনার উপস্থিতির বিষয়ে প্রমাণ পাওয়া যায়। বর্তমানে তাকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।
স্লোভেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী ইয়ানেজ ইনশা বলেছেন, এ মুহূর্তে করোনার নতুন ধরন শনাক্ত করতে পারে এমন কিট আমাদের হাতে পর্যাপ্ত পরিমাণে নেই। আমরা ইতোমধ্যে স্লোভাকিয়ার সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছি এবং আশা করা হচ্ছে, শুক্রবারের মধ্যে তারা আমাদের করোনার নতুন ধরন শনাক্ত করার কিট সরবারহ করবে।
প্রধানমন্ত্রী ইয়ানেজ আরও বলেন, স্লোভাকিয়া থেকে নতুন এ কিট আসলেই স্লোভেনিয়ার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথের পক্ষ থেকে সমগ্র স্লোভেনিয়ায় গত ১১ জানুয়ারি থেকে শনাক্ত হওয়া সব কোভিড-১৯ রোগীকে নতুন করে আরও একবার টেস্টের আওতায় আনা হবে।
ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ের দিকে যুক্তরাজ্যের প্রায় অর্ধ শতাধিক স্থানে নতুন ধরনের করোনা শনাক্ত করা হয়, যার নাম রাখা হয় বি১১৭। পরবর্তীতে পৃথিবীর অন্যান্য অনেক দেশেও নতুন এ ধরনের করোনা ভাইরাসের অস্তিত্বের প্রমাণ পাওয়া যায়। চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের মতে, নতুন বৈশিষ্ট্যের এ ভাইরাস করোনার অন্যান্য প্রকরণগুলোর তুলনায় ৭০ শতাংশ অধিক দ্রুত বিস্তার লাভ করতে পারে।
এছাড়া গত সপ্তাহে দেশটিতে পরীক্ষা করা আরও ৮০টি নমুনার মধ্যে দুইটি নমুনায় যুক্তরাজ্যের করোনার নতুন ধরনের উপস্থিতি থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছে দেশটির সরকার।
দেশটিতে এখন পর্যন্ত দেড় লাখেরও মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গেছে এবং প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের সংক্রমণে দেশটিতে ৩ হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। করোনার বিস্তাররোধে দেশটির সরকার ইতোমধ্যে নানা ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করেছে।

পথিকটিভি/ এ আর