লাকসামে ৭ ভূমিহীন পরিবার সরকারি ঘর পেয়ে মহাখুশি

Spread the love

মশিউর রহমান সেলিম: কুমিল্লার দক্ষিনাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী বানিজ্যিক নগরী লাকসাম উপজেলার মুদাফরগঞ্জ দক্ষিণ ইউপির কাকৈয়া গ্রামের ৭ ভূমিহীন পরিবারের মাঝে আজ শনিবার সকালে লাকসাম উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের অধীনে সরকারি অর্থায়নে নির্মিত বাড়িগুলো ওই উপকার ভোগীদের মাঝে আনুষ্ঠানিক ভাবে চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে।
উপজেলা প্রশাসনের একাধিক সূত্র জানায়, দেশব্যাপী ওই প্রকল্পের অধীনে ভূমিহীনদের মাঝে সরকারি ঘরগুলো হস্তান্তর উপলক্ষে লাকসাম উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা এ প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। আশ্রয়ন প্রকল্পগুলোতে তৈরি ওইসব ঘরগুলো নির্মাণে উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, ভূমি অফিস ও উপজেলা প্রকল্প দপ্তর সকাল-বিকালে প্রতিনিয়ত তদারকি নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। গত ২ দিন যাবত এসব বিষয় নিয়ে প্রশাসনের সার্বিক লোকজনের উপস্থিতিতে এ কার্যক্রমটি অনেকটাই এগিয়ে নিয়ে আসেন। ফলে আজ শনিবার তা ভূমিহীনদের মাঝে হস্তান্তর করতে তেমন কোন সমস্যা হয়নি। এ নিয়ে স্থানীয় মিডিয়াকর্মীরা কোন কিছু না জানলেও প্রধানমন্ত্রীর এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার দাওয়াত পেয়েছেন। এ উপজেলায় ৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে সার্বিক নাগরিক সুবিধাসহ সরকারি বাড়ী প্রদান কার্যক্রম করার মাধ্যমে তা আজ শনিবার হস্তান্তর করা হয়েছে। এ প্রকল্পের অধীনে লাকসাম পূর্ব ইউপির পৈশাগী আশ্রয়ন প্রকল্পে আরও ২৫টি সরকারি ঘর হস্তান্তর পক্রিয়াধীন রয়েছে।
সূত্রটি আরও জানায়, এ উপজেলায় সরকারি খাস জমিতে জমি নাই, বাড়ি নাই এমন পরিবারের জন্য তৈরী করা হয়েছে এ সব সরকারি বাড়ি। প্রতিটি বাড়িতে ২টি শয়ন কক্ষ, ১টি করে বারিন্দা, রান্না ঘর, বাথরুম, পানির ব্যবস্থার পাশাপাশি বিদ্যুত সংযোগের ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতিটি বাড়িতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা। দৃষ্টি নন্দন লাল-সবুজ রংয়ের এঘর গুলো এখন গৃহহীন মানুষগুলোর স্বপ্ন সারথী।
লাকসাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট ইউনুছ ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে সরকারি ঘর উপকার ভোগীদের মাঝে হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) উজালা রানীর চাকমার সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ.কে.এম সাইফুল আলম, লাকসাম নওয়াব ফয়জুন্নেছা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ বাবুল চন্দ্র শীল, উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আবদুল কুদ্দুস, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পড়শী সাহা, উপজেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রফিকুল ইসলাম হিরা, আজগরা ইউপি চেয়ারম্যান মো. রুহুল আমিন, মুদাফগঞ্জ দক্ষিন ইউপি চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ সওদাগর, বাকই ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল আবুল, লাকসাম পূর্ব ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহম্মদ, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারি, থানা পুলিশ, ফায়ার ব্রিগেড, শিক্ষক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সার্বজনিন লোকজন উপস্থিত ছিলেন।
এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা দেবেশ চন্দ্র দাস জানায়, লাকসাম উপজেলার মুদাফরগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের কাকৈয়া গ্রামের ৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার প্রথম দিন থেকে সরকারি ভাবে সার্বিক নাগরিক সুবিধা ভোগ করবে।
এ প্রকল্পের অধীনে উপকারভোগী পরিবারকে ২ শতক জমির দলিলসহ ঘর প্রদান করা হয়েছে মুজিববর্ষ বার্ষিকীতে। এর মাধ্যমে তারা যেমন নিজেদের পরিবার-পরিজন নিয়ে মাথা গোঁজার ঠাঁই পাচ্ছে তেমনি তারা উপার্জনের পথও খুঁে পাবে। অপরদিকে মুজিব বর্ষের এ অনুষ্ঠান মহা ধুমধাম না করে প্রধানমন্ত্রী শেখহাসিনা গৃহহীনদের আশ্রয় দিয়ে তাদের মাঝেই আনন্দ খুঁজে নিলেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ.কে.এম সাইফুল ইসলাম আলম বলেন, মুজিববর্ষ উপলক্ষে এ উপজেলায় প্রথম দাপে ৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন মানুষ পাচ্ছেন তাদের স্বপ্নে ঠিকানা। দীর্ঘদিন থেকে তাদের কাঙ্খিত ঠিকানা পাওয়ার জন্য উচ্ছাস বয়ে এনেছে সবার মনে। প্রধানমন্ত্রী আজ শনিবার ২৩ জানুয়ারি এ উপজেলার কাকৈয়া গ্রামের আশ্রায়ন প্রকল্পের এসব সরকরি ঘরসহ অন্যান্য সরঞ্জাম তাদের মধ্যে হস্তান্তর করতে পেরে উপজেলা প্রশাসন আনন্দিত।