লাকসাম পৌর নির্বাচনে শাসকদলের পুরো প্যানেল বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত

Spread the love

মশিউর রহমান সেলিম, লাকসাম:  কুমিল্লার লাকসাম পৌর নির্বাচনে শাসকদলের পুরো প্যানেল ৯টি ওয়ার্ডে মেয়রসহ সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরগণ বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে এগিয়ে যাচ্ছে।
বেসরকারী একাধিক সূত্র জানায়, দেশব্যাপী অদৃশ্য ভাইরাস করোনার প্রভাব থাকলেও সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন স্থানীয় সরকার নির্বাচন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্তের পরপরই লাকসাম পৌর এলাকায় বেজে উঠেছে নির্বাচনী ঢামাঢোল। এ পৌর নির্বাচনে গত ৩১ ডিসেম্বর মনোনয়ন পত্র জমার শেষ দিনে মেয়র পদে শাসকদলের অধ্যাপক আবুল খায়ের ও বিএনপির বেলাল রহমান মজুমদার মনোনয়নপত্র জমা দিলেও ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে ৬টি ওয়ার্ডেই বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় সাধারণ কাউন্সিলর ও ৩টি সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে অন্য কোন প্রার্থী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে এগিয়ে ছিলেন। ৩রা জানুয়ারি মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষ দিনে বিএনপি প্রার্থী বেলাল রহমান মজুমদারের মনোনয়নপত্রের ত্রুটি থাকায় রিটার্নিং অফিসার তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল করে দেন। ৭ জানুয়ারি কাউন্সিলর পদে ৬নং ওয়ার্ডের আবুল হোসেন বাবুল ও সুজন হোসেন এবং ৭নং ওয়ার্ডে সোহেল আরমান। ১০ জানুয়ারি ৫নং ওয়ার্ডে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের প্রার্থী আবুল কাশেম ও ৬নং ওয়ার্ডে বিএনপির প্রার্থী রুহুল আমিন ও বেলায়েত হোসেন তাদের মনোয়নপত্র প্রার্থীতা থেকে প্রত্যাহার করে নেন।
সূত্রটি আরও জানায়, এবার এ নির্বাচনে ৯টি ওয়ার্ডে পুরুষ/মহিলা ৪৮ হাজার ৮০৯ জন ভোটার ২১ কেন্দ্রের ১৪০টি ভোট কক্ষে ভোট প্রদান করার কথা ছিলো। এছাড়া মনোনয়নপত্র বাছাই ৩রা জানুয়ারী ২০২১ ও প্রত্যাহার ১০ জানুয়ারী ২০২১ নির্ধারিত দিন ধার্য্য হলেও আগামী ৩০ জানুয়ারী ২০২১ ভোট প্রদান করতে ভোটাররা অনেকটাই প্রস্তুত থাকলেও এ নির্বাচন ঘিরে ঘটেছে নানাহ সমিকরণ। এ ছাড়া পৌর এলাকার ৬টি ওয়ার্ডে অন্য কোন প্রার্থী না থাকায় আওয়ামীলীগের একক দলীয় প্রার্থী ১নং ওয়ার্ড ডাঃ মোহাম্মদ উল্যাহ, ২নং ওয়ার্ডে আলহাজ্ব খলিলুর রহমান, ৩নং ওয়ার্ডে এডভোকেট মাসুদ হাসান, ৪নং ওয়ার্ডে আব্দুল আজিজ, ৮নং ওয়ার্ডে মোঃ দেলোয়ার হোসেন ও ৯নং ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর গোলাম রাব্বানী এবং ৩টি সংরক্ষিত মহিলা আসনে নাছিমা আক্তার, নাছিমা সুলতানা ও মোশফেকা আলম মিতা বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে এগিয়ে ছিলো এবং মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে মেয়র পদে শাসকদলের অধ্যাপক আবুল খায়ের, কাউন্সিলর প্রার্থী ৫নং ওয়ার্ড, ৬নং ওয়ার্ড ও ৭নং ওয়ার্ড প্রতিপক্ষ প্রার্থীরা স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি’র প্রতি ভালবাসা ও এলাকা উন্নয়নে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ এবং আগামী দিনে এলাকার সার্বিক উন্নয়ন ধারাবাহিকতা বজায় রাখার লক্ষ্যে তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিলে অবশিষ্ট ৫নং ওয়ার্ডে শাসকদলের মন্সুর আহমেদ মুন্সি, ৬নং ওয়ার্ডে আবু সায়েদ বাচ্চু, এবং ৭নং ওয়ার্ডে শাহজাহান মজুমদার বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে এগিয়ে গেছেন।
স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের একাধিক সুত্র জানায়, দেশের সংবিধানে গনতান্ত্রিক বিকেন্দ্রীকরন এবং সেই লক্ষে প্রতিটি স্তরের স্থানীয় সরকারী প্রশাসনকে নিজ নিজ ক্ষমতা বলে পরিপূর্ন স্বাধীনতা প্রদান ও পূর্ন ক্ষমতায়নের নির্দেশনা থাকলেও বাস্তব পরিস্থিতিতে কী দেখছি এটা কিন্তু সবার জানা। এ পৌর নির্বাচনে প্রধান বিরোধীদল বিএনপির স্থাণীয় নেতৃত্বের দূর্বলতার সুযোগ কাজে লাগিয়ে শাসকদল লাকসামের মানচিত্রে প্রথমবারের মতো এতো বড় জয়লাভ করতে সমর্থ হয়েছে। মূলত এ নির্বাচন ঘিরে বিএনপির রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব প্রকাশ পেয়েছে। তবে শাসকদল আয়ামীলীগের কাছে বিএনপি’র নেতাদের রাজনৈতিক শিক্ষা নেয়ার অনেক কিছু বাকী আছে।
এ ব্যাপারে জেলা-উপজেলা রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় ও নির্বাচন কমিশন অফিস থেকে বার বার চেষ্টা করেও এ নির্বাচন সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র বের করা সম্ভব হয়নি।