নওগাঁর আগামী মৌসুমে আম ও লিচুর ভাল ফলন পেতে আগাম বাগান পরিচর্যা শুরু

Spread the love
 নওগাঁ প্রতিনিধিঃ বর্তমানে বাংলাদেশে যতগুলো ফল বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে তার মধ্যে আম অন্যতম। এদেশের মানুষ আম বেশি পছন্দ করে।
আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জকে পেছনে ফেলে নতুন রাজধানী হিসেবে আবির্ভাব হয়েছে নওগাঁর। দেশের মোট উৎপাদিত আমের সিংহ ভাগই আসে নওগাঁ থেকে। যা এতদিন ছিল চাঁপাইনবাবগঞ্জের দখলে।
এক ফসলি জমিতে ধান চাষের চেয়ে আম চাষ লাভজনক। আর এ কারণেই প্রতি বছর দুই হাজার হেক্টরেরও বেশি জমিতে আম বাগান গড়ে উঠছে। মাটির বৈশিষ্ট্যগত (এঁটেল মাটি) কারণে নওগাঁর আম সুস্বাদু হওয়ায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।
এইসব কে সামনে রেখে আগামী মৌসুমে আমের ভাল ফলন পেতে আত্রাইয়ের বাগান মালিকরা আগাম আম বাগানের পরিচর্যা শুরু করেছেন।
জানুয়ারির মাঝামাঝি থেকেই বেশিরভাগ আম গাছে মুকুল চলে আসে। উদ্যানপালন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এখন থেকেই আমবাগানের বিশেষ পরিচর্যা জরুরি। তা না হলে ফলনে প্রভাব পড়তে পারে। বর্তমানে যে আবহাওয়া চলছে, তাতে আম ও লিচুবাগানে জাবপোকার পাশাপাশি ছত্রাকের আক্রমণ হতে পারে। সেইসঙ্গে দেখা দিতে পারে কালো ক্ষত বা অ্যানথ্রাকনোস রোগ। ঠান্ডায় কোল্ড ইনজুরিতেও আক্রান্ত হতে পারে আমগাছ।
কুয়াশার কারণে সকালের দিকে পরিবেশে যে ভিজেভাব থাকে, তাতে ছত্রাক জন্ম নেয়। এই ছত্রাককে দমন করতে না পারলে পরবর্তীতে আমের ফলনের ক্ষতি হতে পারে। তবে অনেক কৃষক জাবপোকা ও ছত্রাক দমন করতে গিয়ে মাত্রাতিরিক্ত হারে রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহার করে থাকেন, যাতে গাছের ক্ষতি হয়। পরবর্তী সময়ে রোগপোকা দমনে সুনির্দিষ্ট কীটনাশক আর সেভাবে কাজ করে না।
কোল্ড ইনজুরি থেকে আমগাছকে বাঁচাতে পানি স্প্রে করা যেতে পারে। কুয়াশার কারণে ছত্রাকের আক্রমণ রুখতে কিংবা আমগাছে কালোক্ষত বা অ্যানথ্রাকনোস রোগ প্রতিরোধে কার্বেন্ডাজিম ২ গ্রাম প্রতি লিটার পানিতে গুলে স্প্রে করতে হবে। মুকুল আসার মুখে যদি আম ও লিচুগাছে শোষক পোকার আক্রমণ দেখা যায়, তা হলে ইমিডাক্লোরোপ্রিড ১ মিলি প্রতি তিন লিটার পানিতে গুলে আঠা সহযোগে স্প্রে করতে হবে।